১০ টি উপায়ে অনলাইন থেকে ইনকাম করুন

বর্তমানে ফ্রিল্যান্সিং এর চাহিদা ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে। চাকরির বাজারের দুর্গতির কারণে মানুষ এ পেশাকে বেছে নিচ্ছে। তাছাড়া চাকরির চেয়েও ফ্রিল্যান্সিংয়ে অনেক বেশি টাকা ইনকাম করা যায় সেজন্য মানুষ এটাকে পেশা হিসেবে নিচ্ছে। একটা প্রতিবেদনে দেখা গিয়েছে বাংলাদেশে ছয় লক্ষ এর বেশি ফ্রিল্যান্সার রয়েছে। আজকে আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করব প্রফেশনালি কাজ না শিখে কিভাবে আন্তর্জাতিক মার্কেটপ্লেসে কাজ করবেন। তাহলে চলুন শুরু করা যাক।

Table Of Contents

১/ ভেক্টর টেসিন

বিভিন্ন ওয়েবসাইট থেকে শুরু করে কোম্পানির প্রয়োজনে বিভিন্ন ধরনের লোগোর প্রয়োজন হয়। এসব লোগো আমরা যেগুলো ডিজাইন করি সেগুলো সাধারনত জুম করলে ফেটে যায়। যার জন্য লোগটাকে খুবই বাজে দেখা যায়। ভেক্টর টেসিনের মাধ্যমে মূলত লোগো যাতে না ফেটে যায় সেই কাজটি করা হয়। ভেক্টর টপসিন নিয়ে ফাইবার মার্কেটপ্লেসে হাজার হাজার সেলার রয়েছে যারা এই পর্যন্ত কয়েক হাজার কাজ করেছে। ভেক্টর টেসিনের জন্য কোন রকম প্রফেশনাল কাজ শিখার প্রয়োজন হয় না। এর জন্য অনেক ওেইড টুলস রয়েছে আপনি চাইলে সেই টুলস ব্যবহার করে কাজ করতে পারেন।

২/ লোগো ডিজাইন

বিভিন্ন কোম্পানির ওয়েবসাইট কিংবা প্রতিষ্ঠানের জন্য বিভিন্ন ধরনের লোগোর প্রয়োজন হয়। ডিজাইন করা খুবই সহজ একটি কাজ। ফাইবার কিংবা আপওয়ার্ক মার্কেটপ্লেসে লোগো ডিজাইন নিয়ে কয়েক লাখের বেশি ফ্রিল্যান্সার রয়েছে। যারা কয়েক হাজারের বেশি লোগো ডিজাইনের কাজ করেছে। লোগো ডিজাইনের জন্য আপনাকে প্রফেশনালি গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজ শিখতে হবে না।বর্তমানে অনেক পেইড টুলস রয়েছে আপনি চাইলে সে সমস্ত টুলস ব্যবহার করে লোগো ডিজাইন করতে পারেন। এছাড়া অনেক ফ্রী টুলস রয়েছে আপনি চাইলে সেগুলো ব্যবহার করে লোগো ডিজাইন করতে পারেন।

৩/ ফেসবুক বিজনেস পেইজ

অনেক বড় বড় কোম্পানি রয়েছে যারা তাদের মার্কেটিংয়ের জন্য বিজনেস পেইজের প্রয়োজন হয়। ফাইবার কিংবা ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে বিজনেস পেইজ নিয়ে হাজার কাজ রয়েছে। বিজনেস পেইজ তৈরি করতে হলে আপনাকে কোন প্রকার ট্রেনিং করতে হবে না। আপনি জাস্ট ইউটিউবে ফেসবুক বিজনেস পেইজ লিখে সার্চ দিলে অনেক ভিডিও পেয়ে যাবেন।সেখান থেকে কিভাবে বিজনেস পেজ তৈরি করতে হয় সেটা শিখতে পারবেন।

৪/ বিজনেস কার্ড ডিজাইন

বর্তমানে বেশিরভাগ মানুষই বিজনেস কার্ড তৈরি করে। বিভিন্ন কোম্পানির মালিক থেকে শুরু করে স্কুল শিক্ষক, ট্রেইনার বিজনেস কার্ড তৈরি করে। ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে বিজনেস কার্ড নিয়ে কয়েক হাজার বেশি সেলার রয়েছে যারা প্রতিনিয়ত ও কয়েক হাজার বেশি কাজ ডেলিভারি দিচ্ছে। বিজনেস কার্ড তৈরি করার জন্য আপনাকে কোন প্রকার প্রফেশনাল গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজ শিখতে হবে না। বর্তমানে অনেক পেইড টুলস রয়েছে আপনি চাইলে সেই টুলস ব্যবহার করে মিনিটের মধ্যে বিজনেস কার্ড তৈরি করতে পারেন। এছাড়া অনেক ফ্রী টুলস রয়েছে আপনি চাইলে সেই টুলস ব্যবহার করে বিজনেস কার্ড তৈরি করতে পারেন।

৫/ ইন্ট্রো ভিডিও

বর্তমানে ইউটিউবারের সংখ্যা ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে। অনেকেই শখের বসে কিংবা প্রফেশনালি ইউটিউবে কাজ করছে। ভিডিওর কোয়ালিটি ভাল করার জন্য অনেকে ইন্ট্রো ভিডিও ব্যবহার করে। ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে ইন্ট্রো ভিডিওর চাহিদা অনেক। অনেক সেলার রয়েছে যারা ইন্ট্রো ভিডিও তৈরি করে মাসে হাজার হাজার টাকা ইনকাম করছে। আপনি চাইলে ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে ইন্ট্রো ভিডিও তৈরি করার কাজ করতে পারেন। আপনাকে প্রফেশনালি কোন কাজ শিখতে হবে না। অনেক পেইড টুলস রয়েছে আপনি চাইলে টুলসের মাধ্যমে যে কোন ইন্ট্রো ভিডিও তৈরি করতে পারেন।

৬/ টি-শার্ট ডিজাইন

টি-শার্ট ডিজাইন কয়েক বিলিয়ন ডলারের মার্কেটিং। বর্তমানের ছাএদের সবচাইতে বেশি বলা যায়। ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস থেকে শুরু করে বিভিন্ন কোম্পানির আন্ডারে আপনি চাইলেই টি শার্ট ডিজাইন এর কাজ করতে পারেন। এর জন্য আপনাকে প্রফেশনাল গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজ শিখতে হবে না। বর্তমানে আনেক পেইড টুলস এবং ফ্রী টুলস রয়েছে যেগুলোর সাহায্যে আপনি সহজেই যেকোন টি-শার্ট ডিজাইন করতে পারেন।

৭/ পোস্টার ডিজাইন

বিভিন্ন সভা অনুষ্ঠান, কর্মসূচি ইত্যাদিতে পোস্টার এর প্রয়োজন হয়। এছাড়াও ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে পোস্টার ডিজাইন এর ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। আপনি চাইলে কোন রকম দক্ষতা ছাড়াই পোস্টার ডিজাইনের কাজ করতে পারেন। অনেক পেইড এবং ফ্রী টুলস রয়েছে আপনি চাইলে সেগুলো ব্যবহার করে মিনিটের মধ্যে যেকোনো পোস্টার ডিজাইন করতে পারবেন।

৮/ বুক কভার

বর্তমানে বুক কভার এর চাহিদা অনেক বেশি। সব রাইটার তাদের বই বিক্রি বৃদ্ধির জন্য বুক কভার খুবই আকর্ষণীয় ভাবে ডিজাইন করে থাকে। ফাইবার কিংবা আপওয়ার্কে বুক কভার ডিজাইন নিয়ে কয়েক হাজার সেলার রয়েছে। বুক কভার করার জন্য আপনাকে প্রফেশনালি কোন কাজ শিখতে হবে না। টুলস রয়েছে আপনি চাইলে সে টুলস ব্যবহার করে যে কোন বুক কভার ডিজাইন করতে পারেন।


৯/ ইউটিউব ডিসপ্লে এড

বর্তমানে ইউটিউব ডিসপ্লে এডের চাহিদা অনেক বেশি।
বর্তমানে বেশিরভাগ কোম্পানি ইউটিউবে ডিসপ্লে এডের মাধ্যমে তাদের বিজ্ঞাপন দিয়ে থাকে। এসব বিজ্ঞাপন তৈরি করার জন্য বিভিন্ন কোম্পানি ফ্রিল্যান্সার হায়ার করে। আপনি চাইলে ডিসপ্লে এড তৈরি করার কাজ করতে পারেন। এর জন্য আপনাকে কোন প্রকার স্কিলের প্রয়োজন হবে না। অনেক টুলস রয়েছে সেগুলো সাহায্যে আপনি ডিসপ্লে এড তৈরি করতে পারবেন।

১০/ ইউটিউব ভিডিও এড

ইউটিউব ভিডিও এডের চাহিদা বর্তমানে অনেক বেশি। ইউটিউবে প্রতিদিন হাজার হাজার ভিডিও অ্যাড দেখানো হয়। কারণ বর্তমানে টেলিভিশনের চাইতে ইউটিউব বেশি জনপ্রিয়। কেননা সব কোম্পানি ইউটিউব এর মাধ্যমে তাদের কোম্পানির এড গুলো দিয়ে থাকে। আপনি চাইলে কোন প্রকার স্কিল ছাড়া এসব এড তৈরি করতে পারবেন। টুলস এর সাহায্যে আপনি সহজে এসব এড তৈরি করতে পারবেন।

এখানে আমি আপনাদের দশটি সহজ উপায়ে কোন প্রকার স্কিল ছাড়াই অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম করার ধারণা দিয়েছে। এখানে আমি টুলসের সাহায্যে এ সমস্ত কাজগুলো করার কথা বলেছি। আমি আপনাদের একটা টুলসের নাম বলে দিচ্ছি যেটার সাহায্যে আপনারা এই সমস্ত কাজগুলো করতে পারবেন। টুলসটির দুটি ভার্সন রয়েছে ফ্রি এবং পেইড। আপনি চাইলে যেকোন ভার্সন ব্যবহার করতে পারবেন। টুলসটির নাম হল Canva.


আজকের মতো এই পর্যন্তই আশা করি আর্টিকেলটা আপনাদের কিছুটা হলেও উপকারে আসবে। ধন্যবাদ

Similar Posts