সহজেই গুগোল অ্যাডসেন্স অ্যাপ্রুভ করুন

একজন ব্লগারের ব্লগিংয়ে আসার প্রধান কারণ হচ্ছে টাকা ইনকাম করা। ব্লগিং থেকে টাকা ইনকাম করতে হলে আপনাকে অবশ্যই যে কোন একটি এড নেটওয়ার্ক ব্যবহার করতে হবে। প্রত্যেকটা ব্লগারের প্রধান হচ্ছে গুগল এডসেন্স ব্যবহার করা। কেননা গুগল এডসেন্স হচ্ছে সবচাইতে নিরাপদ মাধ্যম এবং গুগল এডসেন্স থেকে টাকা উইথড্র করা খুবই সহজ। আজকের আর্টিকেল আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করব কিভাবে গুগল এডসেন্স সহজে অ্যাপ্রুভ করাবেন এবং কোন কোন কারনে গুগল এডসেন্স হয় না। তাহলে চলুন শুরু করা যাক।

Table Of Contents

গুগল এডসেন্স কি?

গুগল এডসেন্স হচ্ছে একটি এড নেটওয়ার্ক। এর মাধ্যমে বিভিন্ন কোম্পানি তাদের কোম্পানির প্রোডাক্ট প্রমোশনের জন্য বিজ্ঞাপন দিয়ে থাকে। যে কোন কোম্পানি যেকোনো জায়গা থেকে গুগল এডসেন্সের মাধ্যমে বিজ্ঞাপন দিতে পারে। মূলত এটি একটি বিজ্ঞাপন দাতা প্রতিষ্ঠান।

গুগল এডসেন্স কেন ব্যবহার করবেন?

অনেকের মনে হয়ত এই প্রশ্নটা ঘুরপাক খাচ্ছে যে কেন আমি গুগল অ্যাডসেন্স ব্যবহার করবো। কারণ এটি এমন একটি এড নেটওয়ার্ক যেখানে আপনি আপনার টাকা খুবই নিরাপদে পাবেন। গুগোল প্রতি মাসের 22 তারিখে আপনাকে অটোমেটিক পেমেন্ট করে দেয়। তাছাড়া সবচাইতে বেশি ইনকাম গুগলই আপনাকে দিয়ে থাকে। মূলত এজন্য আপনি গুগল এডসেন্স ব্যবহার করবেন।

গুগল এডসেন্স অ্যাপ্রুভ হয় না কোন কোন কারণে?

১/ সেক্সুয়াল কনটেন্ট

ব্লগার হয়ে থাকেন তাহলে আপনার আর্টিকেলে কোন রকম সেক্সুয়াল কনটেন্ট আপলোড করতে পারবেন না। কেননা গুগোল সেক্সুয়াল কনটেন্টে অ্যাডসেন্সে অ্যাপ্রভ দেয় না। এটা গুগলের ভায়োলেশনের মধ্যে পড়ে।

২/ উগ্রবাদী কনটেন্ট

আপনি আপনার ব্লগে যদি কোন শ্রেণীকে উদ্দেশ্য করে বর্ণবাদী কিংবাউগ্রবাদী পোস্ট করেন তাহলে গুগল ঐ সমস্ত ওয়েবসাইটে গুগল এডসেন্স এড দেয় না। এটিও গুগলের ভায়োলেশন এর মধ্যে পড়ে।

৩/ ধর্মীয় উগ্রবাদী

আপনি যদি একজন ব্লগার হয়ে থাকেন তাহলে আপনি যদি আপনার ব্লগে কোন ধর্মকে নিয়ে কোনো রকম আপত্তিকর উগ্রবাদী পোস্ট করেন তাহলে আপনার ব্লগে গুগল এডসেন্স কখনো অ্যাপ্রুভ দেবে না। আপনার ব্লগে ধর্মকে নিয়ে কোনরকম বাজে মন্তব্য কিংবা কোন ধর্মের বিরুদ্ধে একেকজনকে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ার মতো আগ্রহ সৃষ্টি করে থাকেন তাহলে আপনার ব্লগে গুগল এডসেন্স অ্যাপ্রুভ দেবে না।

৪/ রাজনৈতিক উগ্রবাদী

সারা বিশ্বের বিভিন্ন রাজনৈতিক দল রয়েছে।আপনি আপনার ব্লগে যদি কোন রাজনৈতিক দলকে উদ্দেশ্য করে উগ্রবাদী আপত্তিকর পোস্ট করে থাকেন তাহলে গুগল অ্যাডসেন্স আপনার ব্লগে কখনো অ্যাপ্রুভ দেবে না।

৫/ কপিরাইট কনটেন্ট

গুগল এডসেন্স ঐ সমস্ত ওয়েবসাইটকে যারা তাদের নিজস্ব আর্টিকেল অর্থাৎ সৃজনশীলতাকে কাজে লাগিয়ে কনটেন্ট পোস্ট করে তাদেরকে গুগল এডসেন্স সহজে অ্যাপ্রুভ দেয়। আপনি যদি অন্য কারো কনটেন্ট চুরি করে নিজের ওয়েবসাইট আপলোড করেন তাহলেও কখনই আপনার ওয়েবসাইটকে গুগোল অ্যাপ্রুভ দেবে না।

৬/ কপিরাইট ইমেজ

একজন ব্লগারকে তাদের কনটেন্ট আকর্ষণীয় করার জন্য বিভিন্ন রকমের ইমেজ ব্যবহার করতে হয়। আপনি যদি আপনার ব্লগে অন্য কারো ইমেজ ব্যবহার করে থাকেন তাহলে কখনই গুগল অ্যাডসেন্স আপনার ওয়েবসাইটকে অ্যাপ্রুভ দেবে না।

গুগোল অ্যাডসেন্সে অ্যাপ্রভ টিপস

১/ আপনার ওয়েবসাইটকে খুবই সুন্দর ভাবে রেস্পন্সিভ থিম দিয়ে ডিজাইন করবেন।

২/ এইচটিটিপিএস এবং ডটকম ডোমেইন কিনবেন।

৩/ ওয়েবসাইট খুব ফাস্ট লোড হতে হবে। যেমন তিন সেকেন্ডের মধ্যে রাখতে হবে।

৪/ কনটেন্ট ইউজার ফ্রেন্ডলি হতে হবে।

৫/ কনটেন্টের প্রতি সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিতে হবে।

৬/ কপিরাইট কোন কিছু পোস্ট করা যাবে না।

৭/ ওয়েব সাইটের হিউম্যান রিডাবিলিটি সাইটম্যাপ থাকতে হবে।

৮/ প্রাইভেসি পলিসি পেইজ থাকতে হবে।

৯/ টার্মস এন্ড কন্ডিশন পেইজ থাকতে হবে।

১০/ ডিসক্লেইমার পেইজ থাকতে হবে।

১০/ কন্টাক্ট আস পেইজ থাকতে হবে।

১১/ ওয়েবসাইটে মিনিমাম মেনু থাকতে হবে।

১২/ সবগুলো মেনুতে মিনিমাম একটা থেকে তিনটা করে পোস্ট থাকতে হবে।

১৩/ ওয়েবসাইট সার্চ কনসোলে সাবমিট করতে হবে।

১৪/ ওয়েবসাইটে অবশ্যই ট্রাফিক থাকতে হবে।

১৫/ ওয়েবসাইটে মিনিমাম ২০ থেকে ৩০ টা কনটেন্ট আপলোড করুন।

১৬/ মিনিমাম ১০ থেকে ১৫ টা কনটেন্ট গুগোল ইন্ডেক্স হতে হবে।

১৭/ যে ডিভাইসে গুগল এ্যাডসেন্স এপ্লাই করবেন ওই ডিভাইসে যেন আর অন্য কোন এডসেন্স একাউন্ট লগইন করা না থাকে।

বর্তমানে গুগল এডসেন্স ছাড়াও আরো অনেক এড নেটওয়ার্ক রয়েছে আপনারা চাইলে সেটা ব্যবহার করতে পারেন। যদিও ৯০% মানুষ গুগল এডসেন্স ব্যবহার করে বা করার জন্য এপ্লাই করে। অ্যাডসেন্সে অ্যাপ্লাই করার পূর্বে আপনাকে কোন কোন বিষয়গুলো খেয়াল রাখতে হবে এবং কি অনুযায়ী আপনি আর্টিকেল লিখবেন সে গুলো নিয়ে আমি বিস্তারিত ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করেছি। আশাকরি আর্টিকেলটা আপনাদের কিছুটা হলেও উপকারে আসবে। ধন্যবাদ সবাইকে।

Similar Posts